IQNA

15:37 - June 09, 2016
সংবাদ: 2600962
পবিত্র রমজান মাসে রোজা রাখার মধ্যে যে ফজিলত ও তৃপ্তি রয়েছে তা আর কোন কিছুর মধ্যে নেই। মহান আল্লাহ কোন কোন সময় এবং স্থানকে অতি মূল্যবান করেছেন তার মধ্যে মাহে রমজান হচ্ছে অন্যতম। অন্যান্য মাসের সাথে রমজান মাসের তুলনা হচ্ছে সূর্যের সাথে অন্য সকল তারার ন্যায়।
রমজান মাসে রোজা রাখার গুরুত্ব ও ফজিলত অপরিসীম
মহান আল্লাহ রমজান মাসকে নানাবিধ ফজিলতের সমাহার করেছেন। পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে: রমযান মাস, যাতে কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে, যা মানবজাতির জন্য দিশারী এবং এতে পথনির্দেশ ও সত্য ও মিথ্যার পার্থক্যকারী সুস্পষ্ট নিদর্শন আছে। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে কেউ এ মাসে (স্বস্থানে) উপস্থিত থাকবে সে যেন রোযা রাখে; আর যে অসুস্থ অথবা মুসাফির অবস্থায় থাকবে সে অন্য দিনে এ সংখ্যা পূর্ণ করবে।

মহানবী হযরত মোহাম্মাদ(সা.) বলেছেন: أنزلت صحف إبراهيم عليه السلام في أول ليلة من رمضان، وأنزلت التوراة لست مضين من رمضان، والإنجيل لثلاث عشرة خلت من رمضان، وأنزل الفرقان لأربع وعشرين خلت من رمضان

হযরত ইব্রাহিমের সহিফা রোজার প্রথম রাতে, তৌরাত ৭তম রাতে, ইঞ্জিল ১৩তম রাতে আর পবিত্র কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে পবিত্র রমজান মাসের ২৩ তারিখে।

মহান আল্লাহ রমজান মাসে রোজা রাখা ফরজ করেছেন: হে বিশ্বাসীগণ! রোযা যেরূপ তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর আবশ্যিক ছিল তেমনি তোমাদের ওপরও তা আবশ্যিক করা হল; হয়ত তোমরা সাবধানী (ও আত্মসংযমী) হবে।

এই মাসে বেহেশতের দরজাসমূহ খোলা থাকে, শয়তানের হাত বাধা থাকে, এবং রোজার মাস হচ্ছে সবর ও ধৈর্যের মাস। অনুরূপভাবে রমজান মাসেই রয়েছে সেই শবে কদর : {ليلة القدر خير من ألف شهر}؛ যার গুরুত্ব ও কল্যাণ হাজার মাসের থেকেও বেশী।

ট্যাগ্সসমূহ: রমজান ، আল্লাহ ، মোহাম্মাদ
নাম:
ই-মেল:
* আপনার মন্তব্য: